Sunday, May 22, 2022

দেওর চেয়েছিল বউদিকে নিয়ে পালিয়ে যেতে না যাওয়া , দেওরের হাতে বউদি খুন

JJM NEWS DESK :  বউদির সঙ্গে দেওরের চার বছর ধরে বিবাহবহির্ভূত সম্পর্ক। দেওর চেয়েছিল বউদিকে নিয়ে পালিয়ে যেতে। কিন্তু বউদির একটি পাঁচ বছরের সন্তান থাকায় তিনি দেওরের ডাকে সাড়া দিতে অস্বীকার করে। আত্মমর্যাদায় ধাক্কা খেয়ে দেওর শেষে বউদিকে খুনই করে ফেলল। গৃহবধূর ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়ায়।মৃত মহিলার স্বামী শ্রীমন্ত মাইতির অভিযোগ, বাড়ি থেকে কিছুটা দূরে রাজমিস্ত্রির কাজ করছিলেন তিনি। দুপুর ১.৩০ নাগাদ বিড়ি ফিরে দেখি স্ত্রী মৌসুমী মাইতি গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় ঝুলছে। সেই সময় আমার চিত্‍কারে ছুটে আসে প্রতিবেশীরা।

খবর যায় পিংলা থানায়। যেভাবে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় ঝুলছিল তা দেখে পুলিশ এবং গ্রামবাসীদের সন্দেহ হয়। গ্রামে ভাইকে নিয়ে সালিশি সভা ডাকা হলে তার ভাই স্বীকার করে সে তার বউদিকে খুন করেছে। পরে মৃতার স্বামীর অভিযোগে পিংলা থানার পুলিশ মৃতার দেওর তথা নীলাদ্রি মাইতিকে গ্রেফতার করে। ধৃতকে আজ বুধবার মেদিনীপুর আদালতে তোলা হয়
দেওর চেয়েছিল বউদিকে নিয়ে পালিয়ে যেতে না যাওয়া , দেওরের হাতে বউদি খুন

 পুলিশ ওই ব্যাক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। প্রকৃত খুন না আত্মহত্যা, তার তদন্ত করছে পুলিশ। তবে পুলিশের প্রাথমিক অনুমান গলায় দড়ি দিয়ে আত্মঘাতী হয়েছে ওই গৃহবধু। তবে ময়না তদন্তের রিপোর্ট এলে আরো তা পরিস্কার হয়ে যাবে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মৃতার ৮ বছর আগে বিয়ে হয়েছিল। সূত্রের খবর, সালিশি সভায় দেওর স্বীকার করে ৪ বছর ধরে বৌদির সাথে তার দৈহিক সম্পর্ক ছিল। সে বউদিকে পালিয়ে যাওয়ার কথা বলছিল কিন্তু বউদি ছেলেকে নিয়ে পালিয়ে যেতে রাজি হয়নি। সেই কারণেই এই খুন বলে মনে করছেন প্রতিবেশীরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

লেটেস্ট খবর

লেটেস্ট খবর

হাতির খবর

জঙ্গলমহল ভ্রমণ